বাঙালিনিউজ
খেলারডেস্ক

এশিয়া কাপে আজ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বুধবার, প্রথম ভারতের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমে মাত্র ১৬২ রানে শেষ হয়ে গেল পাকিস্তানের ইনিংস। পুরো ৫০ ওভারও খেলতে পারল না পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদের দল। ৪৩.১ ওভারে থেমে গেল তাদের ইনিংসে।
ম্যাচের গোড়া থেকেই ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে পড়ে পাকিস্তান। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে, মাত্র ৩ রানে পড়ে দুই উইকেট। মাঝখানে তৃতীয় উইকেটে বাবর আজম ও শোয়েব মালিক ৮২ রান যোগ করেন।

কিন্তু, আজম ৪৭ রানে ফিরতেই ভাঙন ধরে ইনিংসে। ৭৭ রানের মধ্যে পড়ে শেষ ৮ উইকেট। বাবর ছাড়া উল্লেখযোগ্য রান পেয়েছেন শুধু শোয়েব মালিক (৪৩)। বাবর আজম ও শোয়েব মালিক দুজনে মিলে ইনিংসের হাল ধরার চেষ্টা করেন। কিছুদূর পর্যন্ত সফলও হন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মালিক রান আউট হন। ৬টি বাউন্ডারিরি সাহায্যে ৪৭ রান করে বোল্ড হন আজম৷ দু’বার জীবনদান পেয়ে শোয়েব রানআউট হন ব্যক্তিগত ৪৩ রানে৷

এর পরই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়তে থাকে পাক ব্যাটিং। ১৬২ রানে গুটিয়ে যায় পাক ইনিংস, ৪৩.১ ওভারে। পাকিস্তানের দুই ওপেনারই ফ্লপ। ফকর জামান খাতাই খুলতে পারেননি। অন্যদিকে, ইমাম উল হক করেছেন মাত্র ২। দু’জনকেই ফেরত পাঠান ভুবনেশ্বর কুমার৷

দুই সেট ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পরেই ধস নামে পাকিস্তানের মিডলঅর্ডারে৷ কেদার যাদব পর পর ফিরিয়ে দেন সরফরাজ আহমেদ (৬), আসিফ আলি (৯) ও শাদব খানকে (৮)৷

শেষদিকে মহম্মদ আমিরকে সঙ্গে নিয়ে ৩৭ রানের পার্টনারশিপ গড়েন ফহিম আশরাফ৷ ফহিমকে ২১ রানে আউট করেন বুমরাহ৷ হাসান আলি ১ রান করে ভূবনেশ্বরের শিকার হন৷ খাতা খোলার আগেই উসমান খানকে বোল্ড করেন বুমরাহ৷ আমির ১৮ রান করে অপরাজিত থেকে যান৷

ভারতের সফল বোলার ভুবনেশ্বর কুমার (৩-১৫) ও কেদার যাদব (৩-২৩)। বুমরা পেয়েছেন দুটি। একটি উইকেট কুলদীপ যাদবের৷ ভুবনেশ্বর-বুমরার পেস জুটির পাশাপাশি দুরন্ত বোলিং করেন পার্টটাইম স্পিনার কেদার যাদব৷

গোটা ইনিংসে ভারতের দুরন্ত বোলিংয়ের মাঝে চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়ায় হার্দিক পান্ডিয়ার চোট৷ ইনিংসের ১৮তম ওভারে কোমরে চোট পেয়ে স্ট্রেচারে মাঠ ছাড়েন হার্দিক৷ জয়ের জন্য ভারতের সামনে ১৬৩ রানের টার্গেট৷

দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামের স্লো পিচে পরে ব্যাট করা তুলনামূলক কঠিন৷ স্বাভাবিকভাবেই টসি জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন পাক দলনায়ক সরফরাজ আহমেদ৷

টসে জিতে পাক অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ বলেছিলেন, ”২৮০ রান এই মাঠে লড়াই করার মতো স্কোর বলে আমার মনে হয়। ২৮০ রান করতে পারলেই আমরা ভারতীয় দলকে চাপে ফেলতে পারব বলে আশা করি।” ভারতের সামনে তিনি যে বড়সড় লক্ষ্যমাত্রা রাখতে চেয়েছিলেন, সেটা খেলার শুরুর আগেই খোলামেলা বলেছিলেন সরফরাজ। আর তাই টসে জিতে এক মিনিটও ভাবনা-চিন্তা না করে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। সরফরাজ এটাও জানিয়েছিলেন, গত ম্যাচের একই দল খেলাবেন তিনি।

টসের পর রোহিত শর্মা বলেছিলেন, টসে জিতলে তাঁর দল অ্যাডভান্টেজ পেত। এশিয়া কাপের জন্য নির্বাচিত ভারতীয় অধিনায়ক বলেন, ”হংকংয়ের বিরুদ্ধে আমরা প্রথমে ব্যাট করেছিলাম। তবে আমাদের ব্যাটিং লাইন-আপ রান তাড়া করার ব্যাপারেও আত্মবিশ্বাসী। এই উইকেটে প্রথমে ব্যাট করাটা সুবিধের।”

তবে পরিসংখ্যান বলছে, এশিয়া কাপে সফলতম দল ভারতই। মোট ছয় বার এই প্রতিযোগিতায় জিতেছে ভারত। অন্যদিকে পাকিস্তান চ্যাম্পিয়ন হয়েছে মাত্র দু’বার। এশিয়া কাপে ভারত ও পাকিস্তান মোট ১২ বার মুখোমুখি হয়েছে। ভারত জিতেছে ছ’বার। হেরেছে পাঁচ বার। একবার ম্যাচের নিষ্পত্তি হয়নি। এশিয়া কাপে শেষ সাক্ষাতেও জিতেছে ভারত। ২০১৬ সালে ভারত পাঁচ উইকেটে হারিয়েছিল পাকিস্তানকে। সূত্র: ইন্টারনেট নিউজ।