ক্রীড়া ডেস্ক

২০২২ সালে বার্মিংহামে বসবে পরবর্তী কমনওয়েলথ গেমস। এবারের আসরের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ২৪ বছর পর কমনওয়েলথ গেমসে ফিরছে ক্রিকেট। আপাতত নারীদের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট দিয়ে এই ইভেন্ট ফেরাতে যাচ্ছে কমনওয়েলথের আয়োজক সংস্থা।

কমনওয়েলথ দেশভুক্ত শীর্ষ আট দেশকে নিয়ে এবার যাত্রা শুরু করবে ক্রিকেট ইভেন্ট। সব ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে এজবাস্টনে।

সর্বশেষ ১৯৯৮ সালে কমনওয়েলথ গেমসে ক্রিকেট অন্তর্ভুক্ত ছিল। সেবার ম্যাচ হয়েছিল ৫০ ওভারের। কুয়ালালামপুরে অনুষ্ঠিত ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে স্বর্ণপদক জিতেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। এরপর দীর্ঘ দুই যুগ ধরে ঐতিহাসিক এই গেমসে আর ক্রিকেটের দেখা মেলেনি।

অবশেষে সবাইকে চমক দিয়ে আবারও কমনওয়েলথ গেমসে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে ক্রিকেট। গতকাল ১৩ আগস্ট ক্রিকেটকে ফেরানোর সিদ্ধান্ত জানায় আয়োজক সংস্থা। এ প্রসঙ্গে কমনওয়েলথ গেমস ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট ডেম লুইস মার্টিন বলেন, ‘আজ (মঙ্গলবার) ঐতিহাসিক একটি দিন। কমনওয়েলথ গেমসে ক্রিকেটকে ফেরাতে পেরে আমরা আনন্দিত।’

কমনওয়েলথে ক্রিকেটকে ফেরানোর প্রতিক্রিয়ায় আইসিসির প্রধান নির্বাহী মানু সোহনি বলেন, ‘নারীদের ক্রিকেট ধীরে ধীরে অন্য উচ্চতায় চলে যাচ্ছে। আমরা খুবই খুশি যে কমনওয়েলথ কর্তৃপক্ষ তাদের বড় আসরে ক্রিকেট ইভেন্ট পুনরায় চালু করেছে। যাঁরা এর পক্ষে ভোট দিয়েছেন, তাঁদের সবাইকে ধন্যবাদ। টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট কমনওয়েলথ গেমসের জন্য পারফেক্ট। আশা করছি, দারুণ কিছু পেতে যাবে পুরো বিশ্ব।’